সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫৮ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :::
সিলেটের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল সিলেট ফোকাস নিউজ ডটকম এর জন্য সিলেট বিভাগসহ দেশ বিদেশে সংবাদদাতা ও জেলা উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা ইমেইলে আপনাদের সিভি পাঠাতে পারেন।
শিরোনাম ::::
পিঠাকরা তিনটিলা গ্রামকে ২নং ওয়ার্ডে পুনর্বহালের দাবীতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি সিলেটে ইচ্ছেমতো ভাড়া নেওয়া-অভিযোগ-যাত্রী কম গোলাপগঞ্জে অভিমানে তরুণের আত্মহত্যা ওসমানীনগরে মা-মেয়েকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ২ দক্ষিণ সুরমায় মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট-আহত-২ জনগণের টাকা লুটতেই জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার- রুহুল কবির রিজভী মহাখালীতে বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল ট্রাফিক পুলিশের রাজধানীতে বাস কম, ভাড়া দ্বিগুণ সিলেটে বাস চলাচল কমেছে, বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ও লুটেরা সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করতে হবে-লোকমান আহমদ সিলেটের ওসমানীনগর ট্রাজেডি: এবার সামিরাও চলে গেলেন! মায়ের স্বপ্নপূরণে হেলিকপ্টারে বরের বাড়ি গেলেন কনে সিলেটে তেল না পেয়ে সড়ক অবরোধ বাড়লো ডিজেল-পেট্রোলের দাম, রাত ১২টার পর থেকে কার্যকর সারের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হবে- মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সিলেটে সাইবার মামলায় স্থলবন্দরের কর্মচারী জেল হাজতে শেখ কামালের জন্মবার্ষিকীতে জেলা ও মহানগর যুবলীগের দোয়া মাহফিল প্রাইভেটকার খালে, সিলেটে বেড়াতে আসা বাবা-মেয়ে নিহত শেখ কামাল এর জন্মদিন উপলক্ষে জাফলংয়ে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সিলেট সাইট’ নামে ওয়েবসাইট করে ভয়ঙ্কর প্রতারণা! ৩ নারী-পুরুষ সিআইডি’র জালে
জাতিসংঘ তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে মিয়ানমার

জাতিসংঘ তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে মিয়ানমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: মিয়ানমার সরকারের একজন মুখপাত্র এ তথ্য জানিয়েছেন বলে এএফপির খবরে বলা হয়। জাতিসংঘের প্রতিবেদন প্রকাশের পর মিয়ানমারের পক্ষ থেকে এটিই প্রথম প্রতিক্রিয়া হিসেবে জানা গেছে। রাষ্ট্র পরিচালিত পত্রিকা গ্লোবাল নিউজ লাইট অব মিয়ানমারের খবরে প্রকাশ, সরকারের মুখপাত্র জ হতে বলেন, ‘জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের দেয়া বক্তব্যের সঙ্গে আমরা একমত নই বিধায় আমরা মানবাধিকার কাউন্সিলের সুপারিশ গ্রহণ করতে পারছি না।’

গত সোমবার জাতিসংঘের মিয়ানমার-বিষয়ক স্বাধীন আন্তর্জাতিক তথ্যানুসন্ধান মিশন এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেখানে জানানো হয়, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের উদ্দেশ্যই ছিল গণহত্যা। এ জন্য মিয়ানমারের সেনারা সেখানে রোহিঙ্গাদের নির্বিচারে হত্যা ও ধর্ষণ চালিয়ে তাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়। রাখাইনে মানবতাবিরোধী এসব অপরাধের অভিযোগে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাইংসহ ছয় জেনারেলের বিচারের সুপারিশ করেছে জাতিসংঘ।সোমবার জেনেভায় জাতিসংঘের দপ্তরে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়।

জাতিসংঘের তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান মিয়ানমারের

২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৮ সালের জুলাই পর্যন্ত এক বছর ধরে মাঠপর্যায়ে কাজ করে অন্তত ৮৭৫ জন রোহিঙ্গার সঙ্গে সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে জাতিসংঘের তথ্যানুসন্ধান মিশন প্রতিবেদনটি তৈরি করে। প্রতিবেদন তৈরিতে তারা ভিডিও ফুটেজ ও স্যাটেলাইট চিত্র ব্যবহার করেছে। রাখাইনে ২০১৬ সালের অক্টোবরে রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতার পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদ কর্তৃক ওই তথ্যানুসন্ধানী মিশনটি তৈরী করা হয়।

২০১৬ সালের অক্টোবর আর ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নারকীয় তাণ্ডবের পর এই প্রথম জাতিসংঘের কোনো প্রতিবেদনে সেনাবাহিনীকে গণহত্যার অভিযোগে কাঠগড়ায় নিতে বলা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের ওপর নৃশংসতা বন্ধে সেনাবাহিনীর রাশ টানতে মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি ব্যর্থ হয়েছেন, সেটাও প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, ‘সামরিক প্রয়োজনে নির্বিচারে হত্যা, গণধর্ষণ, শিশুদের ওপর হামলা এবং পুরো গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়ার বিষয়টি কখনো সমর্থনযোগ্য হতে পারে না।’ মিয়ানমার সরকার বরাবরই বলেছে যে রাখাইন অঞ্চলকে জঙ্গিদের ঝুঁকিমুক্ত করার জন্য সুনির্দিষ্ট অভিযান চালানো হয়েছে।

জাতিসংঘের তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান মিয়ানমারের

প্রতিবেদন তৈরির জন্য তথ্যানুসন্ধানী মিশনের সদস্যরা বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড ও যুক্তরাজ্য সফর করেছেন। রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার নেয়ার পাশাপাশি তাঁরা পত্রিকার রিপোর্টসহ বিভিন্ন ধরনের কাগজপত্র, ভিডিও, ছবি ও স্যাটেলাইট চিত্র বিশ্লেষণ করেছেন। এ ছাড়া সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তা, গবেষক আর কূটনীতিকদের সঙ্গে অন্তত আড়াই শ বৈঠক করেছেন। কারও কারও লিখিত বক্তব্য নিয়েছেন। কারও কারও সঙ্গে কথা বলেছেন টেলিফোনে অথবা সরাসরি।

প্রতিবেদনে ‘গণহত্যার উদ্দেশ্যে’ রাখাইনে অভিযানের জন্য মিয়ানমারের সেনাপ্রধান ছাড়া পাঁচ জেনারেলকে অভিযুক্ত করা হয়। এরা হচ্ছেন উপসেনাপ্রধান ভাইস সিনিয়র জেনারেল সোয়ে উইন, বিশেষ অভিযান ব্যুরোর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল অং কিউ জ, পশ্চিমাঞ্চলীয় আঞ্চলিক সেনাবাহিনীর কমান্ডার মেজর জেনারেল মং মং সোয়ে, ৩৩ হালকা পদাতিক বাহিনী বিভাগের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং অং এবং ৯৯ হালকা পদাতিক বাহিনী বিভাগের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল থান ও।

জাতিসংঘের তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান মিয়ানমারের

রাখাইনের পাশাপাশি শান ও কাচিন অঞ্চলেও সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ‘মানবতাবিরোধী অপরাধ’ সংঘটনের অভিযোগ রয়েছে। নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন বেসামরিক সরকার বিদ্বেষমূলক প্রচারকে উসকে দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলামত ধ্বংস করেছে। সেনাবাহিনীর মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধ থেকে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে রক্ষা করতে ‘ব্যর্থ হয়েছে’। এর মধ্য দিয়ে প্রমাণ হয়ে যায় যে, মিয়ানমার সরকারও নৃশংসতায় ভূমিকা রেখেছে। ২০ পৃষ্ঠার চূড়ান্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাখাইনে গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের জেনারেলদের তদন্ত করে ‘যথাযোগ্য’ আদালতে তাঁদের বিচারের মুখোমুখি করার মতো যথেষ্ট তথ্য পেয়েছে তথ্যানুসন্ধানী মিশন।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনে নিরাপত্তা বাহিনীর বেশ কিছু চৌকিতে সন্ত্রাসী সংগঠন আরসার হামলার অভিযোগের পর রোহিঙ্গাদের গ্রামে গ্রামে শুরু হয় মিয়ানমার সেনাবাহিনীর তাণ্ডব। প্রাণ বাঁচাতে মরিয়া রোহিঙ্গাদের ঢল শুরু হয় বাংলাদেশে। নির্বিচারে গ্রাম পোড়ানোর গল্পসহ হত্যা আর ধর্ষণের ভয়াবহ বর্ণনা দিয়েছেন তারা। কক্সবাজারে এখন নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ১১ লাখ ১৮ হাজার ৫৭৬। এর মধ্যে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের ঢলের পর থেকে এসেছে ৭ লাখ ২ হাজার। আর ২০১৬ সালের অক্টোবরের পরের কয়েক মাসে এসেছিল ৮৭ হাজার রোহিঙ্গা। অন্যরা আগে থেকেই অবস্থান করছিলো বাংলাদেশে।

  •  
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © sylhetfocusnews.com
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo