শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞপ্তি :::
সিলেটের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল সিলেট ফোকাস নিউজ ডটকম এর জন্য সিলেট বিভাগসহ দেশ বিদেশে সংবাদদাতা ও জেলা উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা ইমেইলে আপনাদের সিভি পাঠাতে পারেন।
শিরোনাম ::::
সিলেটে কলেজছাত্রকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর অভিযোগে পুলিশের ৩ সদস্য বরখাস্ত শপথ নিলেন ওসমানীনগর উপজেলা চেয়ারম্যান ভিপি শামীম বর্ণিল শোভাযাত্রায় সিলেটে বিজয়ের মাস বরণ মুক্তাদির এর সাথে জিসাস সিলেট জেলা ও মহানগর কমিটির সৌজন্য সাক্ষাৎ বিএনপি এবার আগুন সন্ত্রাসের ফাঁদে পা দেবে না: আমির খসরু নতুন সদস্যদের সাথে জেলা প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের শুভেচ্ছা মতবিনিময়  কর অঞ্চল-সিলেটের জাতীয় আয়কর দিবস উদযাপন আগামী তিন মাস বন্ধ থাকবে ট্রেন সাভার থেকে চুরি হওয়া শিশু সিলেট থেকে উদ্ধার সিলেটের বিয়ের দুইদিন আগে পানিতে ডুবে প্রবাসী তরুণীর মৃত্যু সিলেট তামাবিলসহ তিন শুল্ক স্টেশন হবে আধুনিক, ব্যয় ৩১৩ কোটি টাকা সাংবাদিক আহমেদ ইমরানকে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে সংবর্ধনা সিলেট থেকে দৈনিক ১৬ কোটি ঘনফুট গ্যাস উৎপাদনের চেষ্টা সাইক্লোন, সিলেট এর ২২৫তম সাহিত্য আসর কানাইঘাটে পরকীয়ার জেরে যুবক খুন ঘাসিটুলা জামেয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসায় ওয়াশ ব্লকের উদ্বোধন করলেন মেয়র আরিফ সিসিকে সিএলসিসি’র প্রথম সভা অনুষ্ঠিত শহীদ মিনারে সিলটি পাঞ্চায়িত’র জনসভা অনুষ্ঠিত রাজারগলি সমাজ কল্যাণ সংঘের সংবর্ধনা প্রদান ছোট ভাইকে শাবলের আঘাতে খুন -র‍্যাব‌‌’র হাতে গ্রেফতার রিপন
অসুস্থ মাকে বাঁচাতে বিয়ানীবাজারের এক যুবকের করুণ আর্তি

অসুস্থ মাকে বাঁচাতে বিয়ানীবাজারের এক যুবকের করুণ আর্তি

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি :: শয্যাশায়ী অসুস্থ মাকে বাঁচাতে করুণ আর্তি জানিয়েছেন মালয়েশিয়া প্রবাসী আমিনুল ইসলাম নামক এক যুবক। নিজেদের অর্থ দিয়ে এতোদিন চিকিৎসা চালিয়ে গেলেও এখন তারা চিকিৎসা করাতে হিমশিম খাচ্ছেন। তাই কিডনী জনিত রোগে আক্রান্ত মাকে বাঁচাতে তিনি সহায়তা চেয়েছেন সমাজের সকল বিত্তবানদের কাছে। নিচে তার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো।

‘‘আসসালামু আলাইকুম।
আমি একজন মালয়েশিয়া প্রবাসী। আমার বাড়ি সিলেট জেলার বিয়ানীবাজার উপজেলার লাউতা ইউনিয়ন এর বারই গ্রাম এ। আজ প্রায় ২৭ দিন যাবত আমার মা মৃত্যুর সাথে লড়ছেন। উনাকে প্রথম এ সিলেট এর রাগীব রাবেয়া মেডিকেল এর কিডনি বিভাগ এ ভর্তি করানো হয়। সেখানের ডাক্তাররা দিনের পর দিন উনার পরীক্ষা করায়। কোন রোগ ধরতে পারে না।প্রতিদিন ৪/৫ টা পরীক্ষা করাতে হতো আমাদের। এ রকম করে আমাদের প্রায় ২২/২৩ টা পরীক্ষার পর কোন রোগ না পাওয়ায় ওরা আমাদের আরো পরীক্ষা করতে বলে। আমার বাবা তখন ডাক্তারদের বলেন আপনারা শুধু পরীক্ষা দিতাছেন আমার রোগীর কোন উন্নতি নেই। আপনারা ঠিক মতো রোগ বলতে পারছেন না। আমি গরীব মানুষ এত টাকা পাবো কথায়। তখন ডাক্তার আমার বাবাকে বলে সিলেট ওসমানী মেডিকেল এ নেয়ার জন্য। তাই আমরা ওইখানের খরছ বহন করতে না পেরে ওসমানী মেডিকেল এর কিডনী বিভাগ এর ডাক্তার আলমগীর হোসেন চৌঃ উনার পরামর্শে সিলেট ওসমানী মেডিকেল এ ভর্তি করাই। উনি বর্তমানে কিডনী ( Nephrology) বিভাগ এর ৪ তলা ওয়ার্ড নং ২ বেড নং NEP- X৩ এ আছেন। ওসমানীতে ভর্তির দিন থেকেই উনার অবস্থার একেবারে অবনতি গঠে। আজ ১৩ দিন হয়ে গেছে ওসমানী তে। উনি মৃত্যু যন্ত্রনায় ছট ফট করতেছেন। ডাক্তার বলছেন উনার কিডনী নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। উনার রক্তে ইনফেকশন আছে। উনি এখন চোখ মেলতে পারে না। কথা বলতে পারে না খাইতে পারে না। নাখের মধ্যে নল ঢুকিয়ে উনাকে খাবার দেয়া হচ্ছে। উনি একজন জিন্দা লাশের মতো পড়ে আছেন। আমার বা আমার বাবার এতো সামর্থ্য নাই যে আমরা উনাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য একটা ভালো হাসপাতাল এ ভর্তি করাবো। এইখানের ও খরছ বহন করা এখন আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছেনা। প্রতিদিন আমাদের প্রায় ৫ হাজার টাকার মতো খরচ করতে হয়। তাহলে কি আমার মা এভাবে মৃত্যু যন্ত্রণায় ছট ফট করতে করতে একদিন মারাই যাবেন। আমরা কি পারবনা উনার একটু ভাল উন্নত চিকিৎসা করাতে। টাকার অভাব এ কি আমার মা আমদের সামনেই এভাবে ছট ফট করে মারা যাবে। আমি কি আর আমার মাকে দেখতে পারব না। ভিসা জটিলতার কারনে আমি নিজেও দেশ এ যেতে পারছিনা। আমি আমার বিয়ানীবাজার সহ দেশের সকল বিত্তবান মানুষের কাছে আবদার জানাই দয়া করে আমাদের একটু সাহায্য করুন। আমার মা কে এভাবে মরতে দিয়েন না। নাইলে সারা জীবন নিজেকে অপরাধী মনে হবে মায়ের জন্যে কিছু করতে না পারার। দয়া করে একটু সাহায্য করুন। +৮৮০১৮১৬৩৯৭১৯৪ আমার বাবার মোবাইল নাম্বার। +৮৮০১৭৭৯০৩৩৩৫২ আমার ভাই এর নাম্বার। আমার মালেশিয়া নাম্বার +৬০১৭৫৪৬৩০৫৪।’

  •  
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © sylhetfocusnews.com
Design BY Web Nest BD
ThemesBazar-Jowfhowo